মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২০ জানুয়ারি ২০২০

রূপরেখা

প্রযুক্তি সম্প্রসারণে প্রকল্প অনুসত কার্যক্রমের সংক্ষিপ্ত রূপরেখা

ক. বিকেন্দ্রীভূত কর্মধারা: প্রকল্পে নির্বাচিত কৃষকদের সমন্বয়ে কমন ইন্টারেস্ট গ্রুপ (সিআইজি) গঠন করে গ্রুপের সদস্যদের পারস্পরিক মিথষ্ক্রিয়ায় প্রণীত চাহিদাভিত্তিক মাইক্রো পরিকল্পনা প্রণয়নের ভিত্তিতে সম্প্রসারণ সেবা প্রদানে সর্বোচ্চ গুরুত্ব প্রদান করা হয়েছে। ফলে কৃষি পরিবেশ, খামার পদ্ধতি, গার্হস্থ্য অর্থনীতি, ফসলের উৎপাদন উপযোগিতা, পরিবর্তিত জলবায়ুর প্রভাব, প্রাকৃতিক দুর্যোগ, যোগাযোগ ও বাজার ব্যবস্থা ইত্যাদির নিরিখে কৃষকদেরকে প্রকৃত চাহিদাভিত্তিক সেবাদানের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে।

খ. সিআইজি (কমন ইন্টারেস্ট গ্রুপ): একই গ্রাম বা পাড়ায় বসবাসরত এবং একই আর্থ-সামাজিক অবস্থাসম্পন্ন কৃষকদের মধ্য হতে বাছাই প্রক্রিয়ার মাধ্যমে নির্বাচিত কৃষক সদস্যদের সমন্বয়ে “সিআইজি” গঠিত হয়।

ফসল ও প্রাণিসম্পদ কম্পোনেন্টে প্রতিটি সিআইজি’র সদস্য সংখ্যা ৩০ জন এবং মৎস্যসম্পদ কম্পোনেন্টে গঠিত সিআইজি’র প্রতিটিতে সদস্য সংখ্যা ২০ জন। প্রকল্প এলাকার প্রতিটি ইউনিয়নে মোট সিআইজি সংখ্যা ১৫টি, তন্মেধ্যে ফসল সিআইজি ১০টি, প্রাণিসম্পদ ৩টি এবং মৎস্য সিআইজি ২টি।

প্রতিটি সিআইজি-তে সকল শ্রেণির কৃষকের প্রতিনিধিত্ব থাকবে, তবে ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকের আনুপাতিক হার অধিক হবে। প্রতি সিআইজি-তে ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকের সংখ্যা হবে ৮০% এবং বড় ও মাঝারি কৃষক সংখ্যা হবে ২০%। নারীদের অধিকার সুরক্ষা ও উন্নয়নের স্বার্থে প্রকল্পের আওতায় গঠিত সিআইজি-সমূহে ন্যূনতম ৩৫% নারী কৃষক অন্তর্ভুক্ত থাকবে। ফসল কম্পোনেন্টের ক্ষেত্রে নারীদের সমন্বয়ে পৃথক সিআইজি গঠিত হবে।

প্রতিটি সিআইজি-তে ৯ জন সদস্য বিশিষ্ট একটি কার্যকরী কমিটি থাকবে: সভাপতি-১ জন, সহ-সভাপতি- ১ জন, সেক্রেটারি- ১ জন, কোষাধ্যক্ষ- ১ জন এবং সদস্য- ৫ জন।

এনএটিপি-২ কার্যক্রমে নিম্নোক্ত সংখ্যক সিআইজি অন্তর্ভুক্ত থাকবে:

কম্পোনেন্ট

এনএটিপি-২ এর আওতায় গঠিত সিআইজি’র সংখ্যা

এনএটিপি-১ ভুক্ত সিআইজি’র সংখ্যা

মোট সিআইজি’র সংখ্যা

ফসল

১৫,২৭০

১১,৮৮০

২৭,১৫০

প্রাণিসম্পদ

৩,৫৪৯

৪,৫৮১

৮,১৩০

মৎস্য

৩,০৫৪

২,৩৭৬

৫,৪৩০

মোট

২১,৮৭৩

১৮,৮৩৭

৪০,৭১০

 

প্রযুক্তি সম্প্রসারণের মূল লক্ষ্যস্থল “সিআইজি”। প্রকল্পভুক্ত সকল সম্প্রসারণ কার্যক্রম যথা- প্রদর্শনী, প্রশিক্ষণ ইত্যাদি সিআইজি সদস্যদের মাধ্যমে বাস্তবায়ন করা হবে। প্রকৃত চাহিদা ও উপযোগিতার নিরিখে সিআইজি কর্তৃক প্রদর্শনী কৃষক মনোনীত হবেন। পিআইইউ-ডিএই কম্পোনেন্টে এনএটিপি-২ ভুক্ত (নতুন একজন সিআইজি কৃষক গড়ে ৩টি এবং এনএটিপি-১ ভুক্ত (পুরাতন) কৃষক গড়ে ২ টি প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণের সুযোগ পাবেন।  

সিআইজি’র প্রধান কার্যাবলী:

(১) মাঠ পর্যায়ের সকল কার্যক্রমের জন্য সিআইজি-ই প্রধান সংলাপক (Interlocutor),

(২) দলীয় ব্যবস্থাপনা ও সিআইজি রেজিস্ট্রেশন

(৩) নিয়মিত সভার আয়োজন ও সমস্যা সনাক্তকরণ

(৪) সিআইজি মাইক্রো পরিকল্পনা প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন

(৫) প্রযুক্তি গ্রহণ এবং নন-সিআইজি কৃষকের মাঝে বিস্তার

(৬) মাসিক সঞ্চয় কার্যক্রম ও ব্যাংক হিসাব পরিচালনা এবং সঞ্চয়ের অর্থ আয় বর্ধনমূলক কাজে বিনিয়োগ

(৭) প্রডিউসার অর্গানাইজেশন (PO) গঠন ও বাজার সংযোগ কার্যক্রমে প্রডিউসার অর্গানাইজেশনকে সহযোগিতা প্রদান, ইত্যাদি।

গ. প্রডিউসার অর্গানাইজেশন: প্রডিউসার অর্গানাইজেশন (PO) সিআইজি-দের নিয়ে গঠিত ফেডারেশন। ইউনিয়ন পর্যায়ে ইউনিয়ন প্রডিউসার অর্গানাইজেশন (PO) ও উপজেলা পর্যায়ে উপজেলা প্রডিউসার অর্গানাইজেশন (PO) গঠিত হবে। প্রডিউসার অর্গানাইজেশন (PO) এর প্রধান কাজ হল- ক্ষুদ্র কৃষকদেরকে (smallholder) স্থায়িত্বশীল বাজার সংযোগে/ব্যবস্থায় সহায়তা প্রদান। এনএটিপি-২ এর আওতাভুক্ত “প্রোডাকশন ক্লাস্টার”-সমূহে স্থায়িত্বশীল প্রডিউসার অর্গানাইজেশন প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে।

ঘ. মাইক্রো সম্প্রসারণ পরিকল্পনা প্রণয়ন: ‘মাইক্রো সম্প্রসারণ পরিকল্পনা’ কৃষকদেরকে সম্প্রসারণ সেবা প্রদানের মূল ভিত্তি। “মাইক্রো সম্প্রসারণ পরিকল্পনা” প্রণয়নের প্রথম ধাপ-“সিআইজি মাইক্রো পরিকল্পনা” প্রণয়ন। “সিআইজি মাইক্রো পরিকল্পনা” প্রণয়নে সিআইজি কৃষকগণ নিজেরাই নিজেদের সমস্যা চিহ্নিত করবেন এবং চিহ্নিত সমস্যার আলোকে সিআইজি কৃষকগণই তাদের প্রকৃত চাহিদাভিত্তিক পরিকল্পনা প্রণয়ন করবেন। ইউনিয়নের ১৫টি ‘সিআইজি মাইক্রো পরিকল্পনা’র সমন্বয়ে প্রণয়ন করা হবে “ইউনিয়ন সম্প্রসারণ মাইক্রো পরিকল্পনা” এবং উপজেলার সকল ইউনিয়নের “ইউনিয়ন সম্প্রসারণ মাইক্রো পরিকল্পনা” সমন্বয়ে প্রণীত হবে “উপজেলা সম্প্রসারণ পরিকল্পনা”। প্রণীত ‘উপজেলা সম্প্রসারণ পরিকল্পনা’র ভিত্তিতেই সিআইজি কৃষকদেরকে চাহিদাভিত্তিক সম্প্রসারণ সেবা প্রদান করা হবে।

সম্প্রসারণ পরিকল্পনা প্রণয়নের সামগ্রিক কাজ প্রতি বছরের মার্চ হতে মে মাসের মধ্যেই সম্পন্ন করা হবে, যাতে প্রণীত “সম্প্রসারণ পরিকল্পনা” অনুযায়ী পরবর্তী এক বছরের সকল প্রকার সম্প্রসারণ কার্যক্রম মাঠ পর্যায়ে যথাযথভাবে বাস্তবায়ন করা যায়।

ঙ. নন-সিআইজি কৃষকের মাঝে প্রযুক্তি সম্প্রসারণ কার্যক্রম: প্রকল্পে নন-সিআইজি কৃষকের মাঝে প্রযুক্তি সম্প্রসারণের উদ্দেশ্যে সিআইজি ও নন-সিআইজি পারস্পরিক মিথষ্ক্রিয়া এবং আনুষ্ঠানিক সম্প্রসারণ কার্যক্রমের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে; যেমন- একজন সিআইজি কৃষক গড়ে ২.৭ জন নন-সিআইজি কৃষককে প্রযুক্তি গ্রহণে উদ্বুদ্ধ করবেন, একজন সিআইজি কৃষক ৪-৬ জন নন-সিআইজি কৃষকসহ প্রকল্প আয়োজিত মাঠ দিবসে উপস্থিত হবেন ইত্যাদি। তাছাড়াও প্রকল্পে প্রতিটি ইউনিয়নে সিআইজি ও নন-সিআইজি কৃষকের সমন্বয়ে টেকনোলজি শেয়ারিং প্রশিক্ষণের ওপর বিশেষ গুরুত্ব প্রদান করা হয়েছে।    

. ফিয়াক (ফার্মারস্‌ ইনফরমেশন এন্ড এডভাইস সেন্টার-FIAC): এনএটিপি-২ এর আওতায় ফিয়াক সেবা কার্যক্রম হবে এমন একটি ব্যবস্থা যা সিআইজি কৃষকসহ সকল শ্রেণির কৃষকদেরকে তাদের দোরগোড়ায় ফসল, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ বিষয়ক নানাবিধ চাহিদাভিত্তিক সম্প্রসারণ সেবা গ্রহণে সহায়ক ও যথার্থ ভূমিকা পালন করবে। ফিয়াক এর ভূমিকা হবে-“One stop service center”.

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর (ডিএই) এবং প্রাণিসম্পদ ও মৎস্য অধিদপ্তরের জন্য ইউনিয়ন পরিষদ কমপ্লেক্স ভবনে বরাদ্দকৃত দুইটি কক্ষ থেকে ফিয়াক সেবা কার্যক্রম পরিচালিত হবে। ইউনিয়নের জ্যেষ্ঠ উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা (এসএএও) “ফিয়াক” এর দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হিসেবে কাজ করবেন। ডিএই এর উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা (এসএএও), পিআইইউ-ডিএলএস কর্তৃক নিয়োগকৃত কমিউনিটি এক্সটেনশন এজেন্ট ফর লাইভস্টক (CEAL) এবং পিআইইউ-ডিওএফ কর্তৃক নিয়োগকৃত লোকাল এক্সটেনশন এজেন্ট ফর ফিসারিজ (LEAF) রোস্টারভিত্তিক সূচি অনুসরণ করে ফিয়াকে দায়িত্ব পালন করবেন। প্রতিটি ফিয়াক সাইনবোর্ড, আসবাবপত্র, পেস্ট এন্ড সীড মিউজিয়াম, ক্ষুদ্র কৃষি যন্ত্রপাতি, আধুনিক কৃষি বিষয়ক তথ্য সামগ্রী, ইত্যাদি দ্বারা সুসজ্জিত থাকবে। প্রকল্প হতে এসএএও, CEAL এবং LEAF-দেরকে সম্প্রসারণ কিট বিতরণের মাধ্যমে সহায়তা প্রদান করা হবে যার মধ্যে মোবাইল টেবলেটও অন্তর্ভুক্ত থাকবে। প্রকল্প এলাকায় মোট ১৬২১টি ফিয়াক থেকে সম্প্রসারণ সেবা প্রদানের সংস্থান রাখা হয়েছে।

. দক্ষতা উন্নয়ন: প্রযুক্তি বিস্তার, গ্রহণ ও প্রয়োগে দক্ষতা উন্নয়নের জন্য প্রকল্প সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা/কর্মচারী, কৃষক এবং ব্যক্তিবর্গকে প্রকল্প মেয়াদে মোট ১,১৭,৬০৩টি ব্যাচে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হবে। তাছাড়া, নির্দিষ্ট সংখ্যক কর্মকর্তা/কর্মচারী এবং কৃষকদের বিদেশে শিক্ষা সফর/প্রশিক্ষণ গ্রহণের মাধ্যমে দক্ষতা উন্নয়নের সুযোগও রয়েছে।

জ. প্রযুক্তি সম্প্রসারণে আইসিটি’র ব্যবহার: এনএটিপি-২ প্রযুক্তি সম্প্রসারণে ই-কৃষি কার্যক্রমে গুরুত্ব আরোপ করবে এবং কৃষি সম্প্রসারণ ও বাজার ব্যবস্থায় আইসিটি’র সর্বোত্তম ব্যবহারে প্রচেষ্টা গ্রহণ করবে। আইসিটি কার্যক্রমের আওতায় “Agriculture Knowledge Repository (AKR)” এবং  “Knowledge Platform” তৈরি করা হবে।  

 ঝ. ইউনিয়ন এক্সটেনশন ফ্যাসিলিটেশন টিম (UEFT): UEFT সিআইজি কৃষক এবং অন্যান্য কৃষকদেরকে সমন্বিত ও পরিকল্পিত সম্প্রসারণ সেবা প্রদানের মুখ্য দায়িত্ব পালন করবে। সিআইজি মাইক্রো পরিকল্পনা/ইউনিয়ন সম্প্রসারণ পরিকল্পনা প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন এবং ফিয়াক কার্যক্রমে UEFT এর সদস্যগণের গুরুত্বপূর্ণ ও কার্যকর ভূমিকা থাকবে।

প্রতি ইউনিয়নে ডিএই এর ৩ জন এসএএও, ডিএলএস নিয়োগকৃত CEAL, ডিওএফ নিয়োগকৃত LEAF এবং নির্বাচিত এনজিও এর প্রতিনিধি (ঐচ্ছিক) সমন্বয়ে ইউনিয়ন এক্সটেনশন ফেসিলিটেশন টিম (UEFT) গঠিত হবে। ঊর্ধতন এসএএও UEFT এর নেতৃত্ব দিবেন।

           

ঞ. উপজেলা রিসোর্স টিম (URT): URT ইউনিয়ন সম্প্রসারণ মাইক্রো পরিকল্পনা প্রণয়নে UEFT এবং উপজেলা সম্প্রসারণ পরিকল্পনা প্রণয়নে UECC-কে বিশেষ সহায়তা প্রদান করবে; প্রযুক্তি বিস্তার, গ্রহণ ও প্রয়োগ সংক্রান্ত কার্যক্রমের অগ্রগতি মনিটরিং এবং ত্বরান্বিতকরণে কার্যকর ভূমিকা পালন করবে। সিআইজি কৃষকের প্রশিক্ষণ কর্মসূচি বাস্তবায়নে UECC-কে সহায়তা প্রদান URT অন্যতম বিশেষ দায়িত্ব। নিম্নোক্ত সদস্যদের সমন্বয়ে URT গঠিত হবে:

অতিরিক্ত কৃষি কর্মকর্তা (এএও), ডিএই- সভাপতি; কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা, ডিএই; মৎস্য সম্প্রসারণ কর্মকর্তা, ডিওএফ; ভেটিরিনারী সার্জন, ডিএলএস; সহকারী মৎস্য কর্মকর্তা, ডিওএফ এবং একজন এনজিও প্রতিনিধি। এইও/ভিএস/এফইও পর্যায়ক্রমে সদস্য-সচিবের দায়িত্ব পালন করবেন।

ট.  উপজেলা সম্প্রসারণ সমন্বয় কমিটি (UECC): UECC উপজেলা সম্প্রসারণ পরিকল্পনা প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন করবে এবং উপজেলা পর্যায়ে কৃষক প্রশিক্ষণ কার্যক্রম পরিচালনা করবে। UECC এর সার্বিক কার্যক্রমের ওপরই নির্ভর করে প্রযুক্তি সম্প্রসারণের সফলতা। UECC গঠন নিম্নরূপ:

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা/উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা/উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা পর্যায়ক্রমিক সভাপতিত্ব, উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা, একজন এনজিও প্রতিনিধি, একজন কৃষক প্রতিনিধি (ফসল/হর্টিকালচার), একজন কৃষক প্রতিনিধি (প্রাণিসম্পদ), একজন কৃষক প্রতিনিধি (মৎস্যসম্পদ), কৃষি শিল্পে নিয়োজিত একজন প্রতিনিধি, উপজেলা প্রডিউসার অর্গানাইজেশনের সভাপতি এবং ডিএই এর এএও/এইও- সদস্য-সচিব।

 ঠ. জেলা সম্প্রসারণ সমন্বয় কমিটি (DECC): DECC উপজেলা সম্প্রসারণ পরিকল্পনা চূড়ান্তকরণে কারিগরি সহায়তা প্রদান করবে, প্রয়োজনীয় পরিবর্তন/পরিবর্ধনের জন্য সুপারিশ প্রদান করবে, জেলায় প্রযুক্তি সম্প্রসারণ কার্যক্রমের অগ্রগতি মনিটরিং ও তদারকি  করবে,  এবং সম্প্রসারণ কর্মীদের প্রশিক্ষণ কার্যক্রম বাস্তবায়ন করবে। DECC রূপরেখা হবে নিম্নরূপ:

 উপপরিচালক, ডিএই/জেলা মৎস্য কর্মকর্তা/জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা পর্যায়ক্রমিক সভাপতি, UECC প্রতিনিধি-ডিএই,  UECC প্রতিনিধি-ডিএলএস, UECC প্রতিনিধি-ডিওএফ, এনজিও প্রতিনিধি, উপজেলা প্রডিউসার অর্গানাইজেশনের প্রতিনিধি, স্থানীয় কৃষি গবেষণা প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি, কৃষি ব্যাংক/RAKUB প্রতিনিধি, জেলা সমবায় কর্মকর্তা এবং অতিরিক্ত উপপরিচালক (শস্য)-সদস্য-সচিব।

ড. জাতীয় সম্প্রসারণ সমন্বয় কমিটি (NECC): প্রকল্পের আওতায় সম্প্রসারণ কার্যক্রম যথাসময়ে ও কার্যকরভাবে বাস্তবায়নের নীতি নির্ধারণ এবং আন্তঃবিভাগীয় সমন্বয়, সম্প্রসারণ কার্যক্রমের অগ্রগতি পর্যালোচনা ও পর্যবেক্ষণ, গবেষণা উপযোগী সমস্যা সনাক্তকরণে জাতীয় পর্যায়ে কর্মশালা আয়োজনে সহায়তা প্রদান, অন-ফার্ম রিসার্স/অ্যাডাপটিভ রিসার্সে সহায়তা প্রদান ইত্যাদি কার্যক্রমের জন্য নিম্নোক্ত সদস্যদের সমন্বয়ে NECC গঠন করা হয়েছে:

মহাপরিচালক,ডিএই/ মহাপরিচালক,ডিএলএস /মহাপরিচালক,ডিওএফ পর্যায়ক্রমিক সভাপতি; প্রকল্প পরিচালক, এনএটিপি-২; পরিচালক (টিটিএমইউ),বিএআরসি; ব্যবস্থাপনা পরিচালক, হর্টেক্স ফাউন্ডেশন; সমবায় অধিদপ্তরের প্রতিনিধি; এগ্রি-বিজনেস কমিউনিটি প্রতিনিধি (শস্য); এগ্রি-বিজনেস কমিউনিটি প্রতিনিধি (প্রাণিসম্পদ); এগ্রি-বিজনেস কমিউনিটি  প্রতিনিধি (মৎস্য); বিকেবি প্রতিনিধি; উপ-প্রধান (পরিকল্পনা-১), কৃষি মন্ত্রণালয়; উপ-প্রধান, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়; পরিচালক, পিআইইউ-ডিএই; পরিচালক, পিআইইউ-ডিএলএস; পরিচালক, পিআইইউ-ডিওএফ এবং অতিরিক্ত পরিচালক (সম্প্রসারণ ও সমন্বয়), ডিএই-সদস্য সচিব।


Share with :

Facebook Facebook